বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ০২:১৫ অপরাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
লালমোহনে ০৬ কেজি গাজা সহ এক নারী ব্যবসায়ী আটক। দিনাজপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক প্রধান শিক্ষকের মৃত্যু দিনাজপুরে বাসের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত ১ বিরামপুরে এলজিইডি কর্মকর্তার দূর্নীতিতে উন্নয়ন অগ্রযাত্রা হুমকির মুখে দিনাজপুরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮শ ছাড়িয়ে সাতক্ষীরার নগরঘাটায় পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে ছাগল ও স্বর্ণের দুল ছিনতাই মাধবপুর হত দ্ররিদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর চাল বিতরণ কক্সবাজারে সেনাবাহিনীর ফ্রী মেডিক্যাল ক্যাম্পেইন ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় মুজিব শতবার্ষিকী উপলক্ষে গাছের চারা রোপন ঝালকাঠির রাজাপুরে হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এর মাকে অশ্লীল ভাষায় গালি-গালাজ করায় উত্তেজিত জনতা এক যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

সুবর্ণচরের শিশু নাদিয়ার উন্নত চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর অভিযোগ

রিয়াজ উদ্দিন রুবেল, সুবর্ণচর উপজেলা প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০
  • ৭১ Time View
নোয়াখালী সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বর ইউনিয়নের নাছির উদ্দিনের ১ বছরের শিশু নাদিয়ার চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া যায়। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ সন্দেহে রাজধানীর গ্রীনরোড,পান্থপথ ইউনিহেল্থ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসকের নির্যাতনে শিশু নাদিয়া ইসলাম(১) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে শিশুটির বাবা অভিযোগ করেন। ২৫ জুন সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটের সময় শিশুটির মৃত্যু হয়। মৃত শিশু নাদিয়ার বাবা নাছির উদ্দিন বলেন, গত ২০ জুন শিশু নাদিয়ার নাক ও চোখের পাতার উপরে দুইটি ফোঁড়া ওঠে,পাতলা পায়খানা হয় এবং ব্যাথার কারণে শরীরে জ্বর আসে।অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় নাদিয়ার বাবা-মা ২২ জুন রাত অানুমানিক ১ টার সময় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। শরীরে জ্বর থাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ সন্দেহে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার ২৩ জুন ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরমর্শ দেন। তখন শিশু নাদিয়াকে নিয়ে তার বাবা-মা ২৩ জুন  বিকেলে ঢাকা গ্রীনরোড, পান্থপথ ইউনিহেলথ্ স্পেশালাইজড হাসপাতালে নিয়ে আসেন এবং সেখানের ডাক্তার দেখান। ডাক্তার দেখে নাদিয়াকে আইসিউতে ভর্তি করার কথা বলেন। কিন্তু শিশু নাদিয়াকে ছোট এক রুমের মধ্যে রেখে ছোট একটা খাটের উপর শোয়ানোর পর  মুখে মাক্স লাগিয়ে তার দুই হাত খাটের সাথে দুইদিন বেধেঁ রাখে। ওই দুইদিন শিশু নাদিয়ার বাবা-মাকে দেখা করতে দেয়া হয়নি। ২৫জুন সন্ধ্যায় হাসপাতালের ডাক্তার জানাই নাদিয়া মারা গেছে। মৃত্যুর সময়ও দেখা যায় নাদিয়ার হাত-পা খাটের সাথে বাঁধা। দুই দিনের আইসিইউর টাকা পরিশোধ না করিলে নাদিয়ার মরাদেহ দিবে না বলে  হুমকী প্রদান করে হাসপালাত কতৃপক্ষ। নাদিয়ার বাবা দুই দিনের বিল ৬৬ হাজার টাকা পরিশোধ করেন। নাদিয়ার মৃত্যুর পর মেডিকেল রিপোর্টে দেখা যায় নাদিয়ার কোন করোনা ভাইরাস হয় নাই।
 নাদিয়ার বাবা অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ের কোন করোনা ভাইরাস ছিলো না, তারা টাকার জন্য আমার শিশু বাচ্চাটিকে বেঁধে ফেলে রেখেছিল। সঠিক চিকিৎসা দিলে আমার শিশু বাচ্চাটির মৃত্যু হতো না। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।
শিশু নাদিয়ার এমন মৃত্যুর পর বাবা নাছির উদ্দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইজবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন যেটি ভাইরাল হয়েছে। নাছির উদ্দিনের স্ট্যাটাসটি নিচে তুলে ধরা হলঃ-
আমার নাম নাছির উদ্দিন, আমার মেয়ের নাম নাদিয়া ইসলাম, বয়স — ০১ বছর । আমার বাড়ি নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলা ।   (০১৮৩০৩৫৪৩৭০)
মেয়ের পাতলা পায়খানা বমি দুই দিন পর বুকে সমস্যা দেখা দিলে আমি প্রথমে নিয়ে যাই নোয়াখালী সদর হসপিটালে রাত ০১:০০ টায়। যখন সকাল ১০:০০ টা বাজে তখন ডাক্তার এসে বলে আপনার মেয়েকে ঢাকায় নিয়ে যান তার অবস্থা ভালো না, তাকে ICU তে রাখতে হবে।এই কথা শুনে আমি নোয়াখালীর আরো দুই জন ডাক্তার কে ডেকে নিয়ে আসলাম তারা কি বলে।তারা ও একই কথা বলে। পরে আমি তাকে নিয়ে যায় ঢাকা শিশু হসপিটালে তারা দেখে বলেন তার ICU সাপোর্ট লাগবে তবে আমরা দিতে পারবো না।তার করোনা ন্যাগেটিভ ছাড়া আপনারা অন্যান্য দিকে দেখেন কি করবো এত রিকোয়েস্ট করলাম কিছুই হলো না এই ফাঁকে অনেক প্রাইভেট হসপিটালে খবর নিলাম সবায় সেম কথা।
এখন আমি কি করবো মেয়েকে নিয়ে কোথায় যাবো?
 তখন একটা হসপিটালের খবর ফেলাম।
💉 ইউনিহেলথ স্পেশালাইজড হসপিটাল,৬৯ / ডি গ্রীণ রোড, পান্থপথ, পুরাতন গ্যাষ্টোলিভার  ভবন,১২০৫ । ওখানে যাওয়ার পর তারা বলেন ঠিক আছে আমরা তাকে ICU সাপোর্ট দিবো এই কথা শুনে ভর্তি হলাম ঔ দিন আর আমাদের ঢুকতে দেইনি। পরের দিন ঢুকে দেখলাম মেয়ের হাত – পা বাধা মুখে মাক্স পরা । এইটা দেখে আমি হতবাক! পরে আমি খুঁজতে লাগলাম অন্য কোন হসপিটাল কেউ ভর্তি নিবে কিনা। নাদিয়া কে মনে হয় ৩০ টা হসপিটালে নিয়ে গেলাম। সবাই বলে করোনাভাইরাস  ন্যাগেটিভ না হলে নিবে। পরে আমি বললাম তাহলে একটা লোক দিন আমি তার বেতন দিবো। আমার মেয়ে থেকে সেম্পল নিয়ে আসুক তারে আনা সম্ভব না। তাকে আনতে হলে ইউনিহেলথ স্পেশালাইজড হসপিটাল সিট কেটে আনতে হবে আবার আনলে তারাও ভর্তি নিবে না ! তিন দিন পর করোনা ন্যাগেটিভ ছাড়া , তখন আমি এই তিন দিন মেয়েকে নিয়ে কোথায় থাকবো।এর পরে দিন ল্যাবএইড  থেকে একটা ছেলেকে নিয়ে এসে সেম্পল দিলাম রিপোর্ট আসতে তিন দিন লাগবে, আমি অনেক রিকোয়েস্ট করলাম কিছু হল না। এর পর বিকাল ০৫:০০ টায় মেয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলো এখন মেয়ে কে নিয়ে আসবো এলাকায় কিন্তু যে লম্বা বিল ধরিয়ে দিল ৬০০০০ হাজার টাকা!!
এখন থেকে একটু আগে আমার মোবাইল এ মেসেজ আসলো নাদিয়া করোনাভাইরাস ন্যাগেটিভ । আমার মেয়ে মারা গেলো আমার কোন দুঃখ নাই কারণ আল্লাহ দিয়েছে আল্লাহ নিয়েছে।আল্লাহ চাইলে আরো অনেক নিয়ামত দিতে পারে।
আমি বিচার চাই টাকার জন্য যারা ICU নামের কসাই খানায় রেখে আমার মত আর কোন বাবার কোল খালি না করে। আর কত লোকের জীবন গেলে এই দেশের সরকারের টনক লড়বে আর কত লোক জীবন দিলে স্বাস্থ্য ব্যাবস্থা ভালো হবে। আপনারা সবাই শেয়ার করেন যেন জালিমের বিচার হয়।
এবং বেশি বেশি লেখেন ইউনিহেলথ স্পেশালাইজড হসপিটালের জালিমদের কথা যারা আমার মেয়েকে হাত পা বেঁধে মুখে মাক্স পরিয়ে মেরে ফেলেছে। আল্লাহ  এদের বিচার করেন যেন আর কোন বাবার বুক খালি না হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: মোঃ জহিরুল ইসলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib