বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৪৯ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
জয়পুরহাট পৌর মেয়র মোস্তাকের উদ্যোগে ৪ হাজার পরিবারের মাঝে পূজার উপহার বানারীপাড়ায় শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে রাসেলকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে জনতা মাধবপুরের শাহজাহানপুর ইউনিয়নের উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীক বাবুল হোসন খান বিজয়ী নীলফামারীতে উপ নির্বাচনের ফলাফল বাতিলের দাবিতে সদর উপজেলা বিএনপি’র আয়োজনে মানববন্ধন। ঝালকাঠিতে শুরু হয়েছে ৩দিন ব্যাপি বিজ্ঞান মেলা ও জাতীয় অলিম্পিয়ার্ড ঝালকাঠিতে পাঁচ জেলে আটক ১০টি নৌকা, ১৪ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ২০ কেজি মা ইলিশ জব্দ ঝালকাঠির বিষখালী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলকালে দুটি ড্রেজার জব্দ, চারজনকে এক বছর করে কারাদন্ড চেক জালিয়াতি মামলায় জেলা আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের দুই নেতা জেল হাজতে বরগুনায় দর্জিকে চর মারলেন ওসি পরিষদের পুকুরের মাছ চুরির অভিযোগে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে উপজেলা চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় রংপুরে এরশাদের দাফন সম্পন্ন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৯
  • ১০৩ Time View

আলো রহমান আখি, রংপুর ব্যুরোঃ

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদকে রংপুরের পল্লী নিবাসে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৫টা ৫৫ মিনিটে রংপুর পল্লী নিবাসে সাবেক সেনা প্রধান, রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। দাফন কার্য সম্পন্ন করার আগে কবরের পাশে তার মরদেহকে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে গার্ড অনার প্রদান করা হয়। এরপর সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে মরদেহ দাফনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত নিজ বাসভবন পল্লী নিবাসেই চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন তিনি। রংপুরের কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে জানাজা শেষে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ তার মরদেহ বহনকারী গাড়ি নিয়ে বিকেল সাড়ে ৪টায় পল্লী নিবাসে পৌঁছান। এ সময় এসময় উত্তরাঞ্চলে ১৬ জেলার লক্ষাধীক বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ প্রিয় নেতার কবরে মাটি দিতে অংশ নেয়। কেউ কেউ কান্নায় ভেঙে পড়েন। চার কিলোমিটার হেঁটে জাতীয় পার্টির সদ্য প্রয়াত চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের মরদেহ বহনকারী গাড়ি এরশাদের স্বপ্নের বাসভবন রংপুরের পল্লী নিবাসে নিয়ে যান দলীয় নেতাকর্মীরা। রংপুরের মানুষের ভালোবাসায় শ্রদ্ধা রেখে পল্লী নিবাসেই এরশাদকে দাফন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় পার্টি। এরপর কড়া নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সু-শৃঙ্খল সহযোগিতায় দাফন কার্য সম্পন্ন হয়। এর আগে রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে চতুর্থ জানাজা নামাজের পর ব্যারিকেট দিয়ে এরশাদের লাশবাহী কফিন পল্লী নিবাসে নেওয়া হয়। এসময় তার নিকটাত্মীয় স্বজনদের কান্নায় ভারী হয় সেখানকার আকাশ বাতাস। গত সোমবার বিকেল ৩টার দিকে রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমানের নেতৃত্বে এরশাদের পল্লীনিবাস বাসভবন সংলগ্ন লিচু বাগানে এরশাদের কবর খোঁড়ার কাজ করেন জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতাকর্মীরা। সেই সঙ্গে এরশাদের দাফন যে কোনও মূল্যে রংপুরেই করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছিল উত্তরবঙ্গ জাতীয় পার্টি (রংপুর ও রাজশাহী) কমিটি। প্রয়োজনে তারা জীবন দিয়ে হলেও মরদেহ রংপুর থেকে নিয়ে যেতে দেবেন না। রাজধানীর সামরিক কবরস্থানে দাফনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সোমবার দুপুরে রংপুরে জাতীয় পার্টির উত্তরবঙ্গ প্রতিনিধি সভায় নেতৃবৃন্দ এ ঘোষণা দেয়। মঙ্গলবার দুপুরে পার্টির সিনিয়র নেতারা এরশাদকে সমাহিত করার বিষয়ে চুড়ান্ত এ সিদ্ধান্ত নেন। জাতীয় পার্টি সূত্র জানায়, পল্লী নিবাসে এরশাদের সমাহিত করার অনুমতি দিয়েছেন তার স্ত্রী ও জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ। এরশাদের কবরের পাশে নিজের জন্য কবরের জায়গা রাখার অনুরোধও করেছেন রওশন এরশাদ। এরশাদের ছোটভাই ও জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের এবং দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাও পল্লী নিবাসে এরশাদকে সমাহিত করার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু এরশাদ রংপুর-৩ (সদর) আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি এ আসন থেকে টানা ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। রংপুরকে জাতীয় পার্টির ঘাঁটি বিবেচনা করা হয়। এরশাদ জেলে থেকেও এখান থেকে ভোট করে বারবার নির্বাচিত হয়েছেন। পল্লীবন্ধুকে নিয়ে রংপুরের মানুষের এক ধরনের আবেগ কাজ করে। সেই আবেগ থেকেই কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে এখানকার নেতাকর্মীরা পল্লী নিবাসে এরশাদের জন্য কবর খুঁড়ে রাখেন। তারা এরশাদকে রংপুরেই সমাহিত করার সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন। এর আগে মঙ্গলবার বাদ জোহর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে চতুর্থ জানাজা নামাজের আগে উত্তেজিত নেতা কর্মীদের দ্বারা তোপের ঘটনাটি ঘটে। এর আগে জানাজা নামাজে উপস্থিত লাখো জনতার উদ্দেশ্যে জাপার মহাসচিব আলহাজ্ব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভাই জিএম এম কাদের আপনাদের উদ্দেশ্যে যে কথাগুলো বলবেন, তা আপনারা শুনবেন ও মেনে নেবেন। এরপর, জিএম কাদের এরশাদের শাসনামলের কিছু উন্নয়নয় চিত্র উল্লেখ করেন। সেই সঙ্গে এরশাদের লাশ ঢাকায় দাফন করা হবে এমন প্রশ্ন নেতা কর্মীদের মনে সন্দিহান হলে তার মাইক্রোফোন কেড়ে নেয় রসিক মেয়র মোস্তাফিজার রহমান। তারপর, মেয়র ঘোষনা দেয় রংপুরেই এরশাদের দাফন সম্পন্ন হবে। এজন্য লাশবাহী গাড়ী বেরিকেট দিয়ে পল্লীনিবাসে নেওয়া হবে। তাই তিনি উপস্থিত লাখো মুসল্লিকে সহযোগিতা করার জন্য উদাত্ত আহবান জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান ও এরশাদ পুত্র স্বাদ সহ উত্তরাঞ্চলের নেতাকর্মীরা। উল্লেখ্য, এরশাদ সিএমএইচে চিকিৎসাধীন থাকার সময় থেকেই রংপুর জাতীয় পার্টির নেতারা তাকে রংপুরে দাফনের দাবি জানিয়ে আসছেন। তাদের যুক্তি, এরশাদ বলে গেছেন রংপুরে মৃত্যু হলে তাকে যেন পল্লী নিবাসে দাফন করা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় রংপুর নগরীর দর্শনা এলাকায় এরশাদের বাসভবন পল্লী নিবাসের পাশে তার বাবা মরহুম মকবুল হোসেন মেমোরিয়াল হাসপাতাল এলাকায় লিচু বাগান চত্বরে তার জন্য কবরও খনন করা হয়। রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর জাপা সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কবরের জায়গা নির্ধারণ এবং নিজেই মাটি কেটে কবর খননের কাজ শুরু করেন। প্রসঙ্গত, ১৪ জুলাই ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। মৃত্যুালে তার বয়স হয়েছিল ৯০বছর।তিনি রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: সময় সংযোগ টুয়েন্টিফোর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib