বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
রংপুরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় এএসআই রাহেনুল জড়িত বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ২৯ নভেম্বর রেলমন্ত্রী। সম্প্রসারিত মেডিকেল সেন্টারে প্যাথলজি ল্যাব স্থাপন কাজের উদ্বোধন বনদস্যুদের গুলিতে আহত মৎসজীবি নজির অবশেষে মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন বাগেরহাটে ছেলে হত্যার বিচার ও জীবনের নিরাপত্তার দাবীতে বৃদ্ধের সংবাদ সম্মেলন বাগেরহাটে ভুল অপারেশনে মৃত্যুর অভিযোগ, চিকিৎসকের শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন বাগেরহাটে জেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা ঝালকাঠিতে মা ইলিশ ধরার দায়ে আরও ২ জেলের কারাদন্ড ঝালকাঠিতে আর্সেনিকমুক্ত পানি বিষয়ক একদিনের কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে ঝালকাঠিতে একজন সফল উদ্যোক্তা সৈয়দ এনামুল হক

মির্জাগঞ্জে ঘূর্নিঝড় ফণী’র তান্ডবে ১৮ কোটি টাকার ক্ষতি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০১৯
  • ১৩৬ Time View

মো.কামরুজ্জামান বাঁধন, বিশেষ প্রতিনিধি॥
পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে ঘূর্নিঝড়‘ফণী’র তান্ডবে ১৮ কোটি ৩৮ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে মেন্দিয়াবাদ ও রামপুর গ্রামের পায়রা নদীর বাধঁ ভেঙ্গে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়ে পাঁচ শতাধিক পরিবারের ৬ সহস্রাধিক মানুষ পানি বন্দি হয় ও ফসলের মাঠ তলিয়ে যায়। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, ঘূর্নিঝড়‘ফণী’র প্রভাবে পায়রা নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুট বৃদ্ধি পেয়ে বিভিন্ন এলাকার অরক্ষিত বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ৪.৮৫ কিলোমটিার গ্রামাঞ্চল প্লাবিত হয়,সম্পূর্ন বিধ্বস্ত হয়েছে ৫৭টি ঘরবাড়ি ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১ হাজার ১১টি ঘরবাড়ি, ২টি ছাগল ও ১টি গরু মারা যায়,শস্য ক্ষেতের সম্পূর্ন ক্ষতি হয়েছে ৪৮৪ হেক্টর ও আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৩২৫ হেক্টর জমির, ২০০টি পুকুরের মাছ ভেসে গেছে, কাঁচা সড়ক আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৯ কিলোমিটার, আংশিক বাধেঁ ক্ষতি হয়েছে ২০ কিলোমিটার, বনায়নের সম্পূর্ন ক্ষতি ৯ হাজার ৬০৬টি গাছ, ১২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় আংশিক ক্ষতি হয়েছে, এছাড়া দুইটি কলেজ ও ৬টি মাদ্রাসার ক্ষতিসহ মোট ১৮ কোটি ৩৮ লক্ষ ৮৮ হাজার ৩২৫ টাকার ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এস.এম দেলোয়ার হোসেন জানান, উপজেলার ঘূর্নিঝড় ফণীর প্রভাবে উপজেলার বড়িবাধেঁর ক্ষতি হয়েছে বেশি। তবে ঘূর্নিঝড়ের দুইদিন আগে থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সবদিকে নজর রেখেছেন এবং নিজে পায়রা নদীর বেড়িবাধেঁর বাইরে থাকা উপজেলার বিভিন্ন বাড়ি-বাড়ি গিয়ে লোকজনদের আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন। তবে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করা হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল্লাহ আল জাকী বলেন, ঘূনিঝড় ফনী’র কারনে উপজেলার ৪২টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২৯ হাজার ৪৪৫জন মানুষ নিরাপদে আশ্রয়ে আনা হয়। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। উপজেলায় মেন্দিবাদের বেড়িবাধঁ দিয়ে পানি ঢুকে কয়েকটি গ্রামের লোকজন পানিবন্দি হয়ে পড়ে ও রবি শস্যের ক্ষতি এবং কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বিধ্বস্ত হয়েছে। ইতিমধ্যেই মেন্দিয়াবাদ গ্রামের পায়রা নদীর বেড়িবাঁধ নির্মানের জন্য স্থান নির্ধারন করা হয়েছে,দু’একদিনের মধ্যে বেড়িবাঁধ নির্মান কাজ শুরু হবে। বাধঁ নির্মান করা হলে ওই এলাকায় আর কেউ পানি বন্দি হবে না আশা করছি। তবে ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তার জন্য তালিকা তৈরী করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: সময় সংযোগ টুয়েন্টিফোর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib