বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ০৬:০৯ অপরাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :

“মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন ডিআইইউ শিক্ষার্থী জয়ফুল “

মকবুল হোসাইন, ডিআইইউ প্রতিনিধি
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ১৮০ Time View
বিশ্ব সভ্যতা আজ একটি ক্ষুদ্র ভাইরাসের কাছে হার মেনেছে। কত উন্নত প্রযুক্তি -আবিস্কার কোন কিছুই তার সাথে তাল মিলাতে পারছে না।বিশ্বের সব বড় বড়  বিজ্ঞানীরা দিন রাত এক করে কাজ করে যাচ্ছেন।  এখন পর্যন্ত কোন কার্যকরী ঔষধ আবিষ্কার হয়নি। ক্ষুদ্র এই ভাইরাস পুরো বিশ্ব দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।কোন কিছুই তাদের থামাতে পারছেনা। বিশ্ব আজ ধ্বংস স্তূপে পরিণত হয়েছে।  চারদিকে শুধু মৃত্যু আর লাশের মিছিল। বিশ্ব আজ এক অনিশ্চিয়তার দিকে ক্রমাগত হেটে যাচ্ছে।  কবে শেষ হবে এই সংকট কেউ জানে না। সকল কাজ কর্ম আজ স্থবির হয়ে আছে, ঘুরছেনা অর্থনীতির চাকাও। এই মহামারী সংকটের মধ্যে একদল মানুষ দিন রাত এক করে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।  সকল মানুষ আজ ঘরে অবস্থান করলেও তাদের ঘরে থাকার উপায় নেই। পর্দার আড়ালে থেকেও আলো হয়ে আছেন কিছু কিছু মানুষের অন্তরে, তেমনি একজন ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ডা, জয়ফুল আক্তার৷ ইংরেজি সাহিত্য পড়াশুনার পাশাপাশি অর্জন করে নেন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শাস্ত্রের উপর ডিএইচএমএস সার্টিফিকেট৷
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইংলিশ এ্যলামনাই এসোসিয়েশনের আহবায়ক জনাব শাহ আলম চৌধুরী হিমু জানান- আমরা ডিআইইউ ইংলিশ পরিবারের পক্ষ হতে সাধারণ মানুষের জন্য চালু করেছি টেলিমেডিসিন সেবা৷ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য এ সেবা সম্প্রসারিত করেছি৷
তিনি সরাসরি করোনা আক্রান্ত মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি অনলাইনে বিভিন্ন বিষয় চিকিৎসা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইংলিশ এ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সার্বিক সহযোগিতায় তিনি অজস্র মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন।
রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় কাজ করছে ডাক্তার জয়ফুল আক্তার ও তার দল।রাজধানীর মিরপুরের শাহ আলী থানার বিপরীতে সমতা একাডেমিতে প্রায় ১৫ দিন ব্যাপী মেডিক্যাল ক্যাম্প করেন যৌথভাবে। মহাখালীর ওয়ারলেস এলাকায়ও যৌথ ক্যাম্প পরিচালনা করেন। এসব মেডিক্যাল ক্যাম্প গুলোতে সাধারণত লক্ষন ভিত্তিক সেবা দিয়েছেন। যেমন- সাধারণ জ্বর, ঠান্ডা, কাশি যাদের আছে তাদেরকে প্রাথমিকভাবে ঔষধ দিয়েছেন। সব গুলো লক্ষন বিবেচনা করে ঔষধ দিয়েছেন। মারাত্মক কোন সমস্যা থাকলে টেস্ট করাতে বলছেন। তাছাড়া সাধারণ মানুষের পক্ষে টেস্ট করানো অনেক সময়ই দুরূহ ব্যাপার। অনেকে আবার টেস্ট করাতে গিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরতে ঘুরতেই মারা যাচ্ছেন।
এছাড়াও রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোড এলাকায়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ এলাকায় ও বাড্ডা এলাকায় চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন। এককভাবে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় একজন করোনা পজিটিভ রোগীকে নিজের তত্ত্বাবধানে বাসায় গিয়ে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন। সে  রোগী এখন করোনা নেগেটিভ।  এটি তার একক সাফল্য। তাছাড়া তার এক বন্ধুর ছোট বোন করোনা পজিটিভ ধরা পড়লে বাসায় গিয়ে তাকে বিভিন্নভাবে পরামর্শ দিয়েছেন।  তাকে মানসিক শক্তি যোগাতে সহায়তা করেছেন।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির দুজন স্টাফের পরিবারের কয়েকজন সদস্য বেশ কিছু দিন যাবত জ্বরে আক্রান্ত।  আট দশ দিন যাবত মাঝে মাঝে জ্বর আসে, আবার চলে যায়। তারা ডাক্তারের পরামর্শে বিভিন্ন ধরনের ঔষধ সেবন করেন।  তবে কোন সুফল পান না।পরবর্তীতে ডাক্তার জয়ফুল আক্তারের শরণাপন্ন হন।এখন থেকে তিনি ঐ পরিবার দুটোর চিকিৎসা সেবা দিবেন। তাদেরকে প্রথমত টেস্ট করাতে বলছেন।
সরাসরি চিকিৎসা সেবা দেয়ার পাশাপাশি অনলাইনেও চিকিৎসা সেবা ও বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছেন ডাক্তার জয়ফুল আক্তার। শুধু ঢাকা শহর নয় সারা বাংলাদেশে তিনি অনলাইন চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শ দিচ্ছেন।  পর্দার আড়ালে থাকা জয়ফুল আক্তারদের জন্য রইলো শ্রদ্ধা৷

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: মাহিরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib