শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১১:২৭ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
মাধবপুরে মাস্ক না পরায় ৫ জনকে জরিমানা যতদিন বেচে থাকবো বানারীপাড়া বাসীর পাশে থাকবো এমপি শাহে আলম রংপুরে এরশাদ এর কবর জিয়ারত করলেন জাতীয় পার্টি (জাপার) চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এর সহধর্মিণী শরীফা খাতুন রংপুরে হত্যা মামলার তদন্ত ছাড়াই পুলিশের অভিযোগপত্র দাখিলের অভিযোগ ৩ মাস পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের ওপর দেয়া অনাস্থার তদন্ত শুরু! জমির মালিকদের টাকা ফেরত দেওয়া হবে– পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী। বাগেরহাটে পুষ্টি উন্নয়নে নাগরিক কমিটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মীর জুলফিকর আলী লুলুর স্মরণে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা বাগেরহাটে ৬ দিনেও গ্রেফতার হয়নি গৃহবধু ধর্ষণ মামলার আসামী বাগেরহাটে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি শুরু

মাধবপুর বাগানগুলোসহ ও সাতছড়ি আজও পৌঁছেনি মোবাইল নেটওয়ার্ক

পিন্টু অধিকারী , মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৬ Time View

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার  এশিয়ার বৃহত্তম চা বাগান সুরমা চা বাগানের এলাকাগুলো ও চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ী জাতীয় উদ্যান ও সাতছড়ী চা বাগান এলাকায় এখনো পৌঁছেনি মোবাইল নেটওয়ার্ক। দেশের সংবিধানে সকল নাগরিকদের সমান অধিকারের কথা বলা হলেও বাস্তবে এ-সব এলাকার লোকজন প্রতিটি ক্ষেত্রেই বঞ্চিত হচ্ছে বিভিন্ন অজুহাতে।এব্যাপারে সাতছড়ী জাতীয় উদ্যান এলাকার বাসিন্দা আশীষ দেববর্মা বলেন পর্যটন এলাকা হিসেবে মোবাইল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা প্রয়োজন এই এলাকাটিকে। কারণ মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় অনেক পর্যটক এখানে আসতে চায় না। ব্রাহ্মণবাড়িয় থেকে সাতছড়ী জাতীয় উদ্যানে বেড়াতে আসা ব্যাবসায়ী আলমগীর কবির বলেন, এখানে ঘুরতে এসে দেখি মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই। তাই সারাদিন থাকার পরিকল্পনা নিয়ে আসলেও দ্রুত চলে যেতে হচ্ছে। কারণ ব্যাবসার প্রয়োজনে মোবাইল নেটওয়ার্কের বাইরে থাকার সুযোগ নেই। স্থানীয়দের অভিযোগ,” মোবাইল নেটওয়ার্ক এর আওতায় আনার জন্য এখানে টাওয়ার বসানো হলে তা জীববৈচিত্র্যের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে। বিশেষ করে টাওয়ারের আশপাশের এলাকার পাখির ডিম নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ফলে পাখির বংশবিস্তার ব্যাহত হবে।” এমন উদ্ভট দাবি করে বনবিভাগের কর্তৃপক্ষ এখানে মোবাইল কোম্পানির টাওয়ার বসানোর অনুমতি দিচ্ছে না। সাতছড়ী গাড়টিলা এলাকার বাসিন্দা সিরিজ বলেন, সাতছড়ী জাতীয় উদ্যানের কাছে টাওয়ার বসালে যদি সমস্যা হয়, তাহলে পার্শ্ববর্তী সুরমা চা বাগানে যে কোন একটি মোবাইল কোম্পানির টাওয়ার বসানো হলেও আমাদের সমস্যার সমাধান হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাতছড়ী চা বাগানের এক শ্রমিক জানান, আমাদের এলাকায় ভারতের বিভিন্ন কোম্পানির মোবাইল নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় কিন্তু বাংলাদেশের মোবাইল কোম্পানির টাওয়ার না থাকায় নেটওয়ার্ক নেই। ফলে অনেকেই লুকিয়ে ভারতীয় বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির সিম ব্যবহার করে। মোবাইল কোম্পানি গুলোর কারণে আমরা বুঝতে পারি না আমরা কি বাংলাদেশের নাগরিক নাকি ভারতীয়? স্থানীয় জনসাধারণের দাবি সুরমা চা বাগান, সাতছড়ী চা বাগান, সাতছড়ী জাতীয় উদ্যান ও মোবাইল কোম্পানির কর্তৃপক্ষ সমন্বয় করে একটি টাওয়ার বসানো হলে পর্যটন ও স্থানীয় জনসাধারণ উপকৃত হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: মোঃ জহিরুল ইসলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib