শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৪৯ অপরাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
ঝালকাঠিতে শহীদ মিনার ভেঙে বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে অবৈধভাবে স্টল নির্মাণের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের জন্য জবির ১৮ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি খাগড়াছড়িতে সড়ক দূর্ঘটনায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত। মাধবপুর পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা কুয়াকাটায় ডাক্তার গ্রুপের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগে এনে সংবাদ সম্মেলন পিরোজপুরের নাজিরপুরে দুই শিক্ষার্থীকে আটকে মারধর করার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের হিলি স্থল বন্দর পরিদর্শন টঙ্গীতে যুবলীগ নেতা আজিজুল ইসলামের বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের সংবাদ সম্মেলন পিরোজপুরের নাজিরপুরে কলেজ ছাত্রী ও স্কুল ছাত্রকে দিনভর আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনায় থানায় মামলা: গ্রেফতার- ১ পঞ্চম বারের মতো রংপুর রেঞ্জে শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হিসেবে পুরস্কার পেলেন বিপ্লব কুমার সরকার।

ভিকটিমের মেয়ের আদালতে মামলা : তদন্তের নির্দেশ হত্যা মামলার বাদী নিয়ে তেলেসমাতি কারবার!

রংপুর ব্যুরোঃ
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৬ Time View

খুনের ঘটনায় সাজানো হয়েছে মামলার পরিকল্পিত নাটক। হত্যা মামলার বাদী নিয়ে তেলেসমাতি কারবার হয়েছে! ভিকটিমকে শাশুড়ী ও মেয়েকে স্ত্রী দাবি করে মামলা নেয়ার বিষয়টি শেষতক আদালত পর্যন্ত গড়ানোর চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, রংপুর নগরীর মুলাটোল হকের গলি এলাকার বাসিন্দা আরজুমান্দ বানু ওরফে মিনু নিজ বাড়িতে একা বসবাস করতেন। রংপুর জেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের চাকরি হতে অবসরে যান তিনি। তার একমাত্র মেয়ে তানিয়া মাহাজাবিন সুমী চাকরির সুবাদে ঢাকায় অবস্থান করেন। পরিবারে আর কোন সদস্য না থাকায় সুমীর বৃদ্ধা মা একাই ওই বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। গত ১৯ মে দিবাগত রাতে আরজুমান্দ বানু নৃশংসভাবে খুন হয়। তাৎক্ষনিক মায়ের মৃত্যুর বিষয়টি জানতে পারলেও ভাগ্যে জোটেনি বিদায়ের বেলায় শেষবারের মতো মায়ের মুখটি দেখা। ওই সময় বৈশি^ক মহামারি করোনার ছোবল বাংলাদেশে থাকায় লকডাউন, ঘুর্ণিঝড় আম্পান ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তার জন্য রাজধানী থেকে রংপুরে আসা সম্ভব হয়নি মেয়ে তানিয়া মাহাজাবিন সুমীর। তার মায়ের লাশ কে গ্রহণ করবে এবং দাফন কার্য কিভাবে সম্পাদন হবে তা, নিয়ে মেয়ে হিসেবে সুমী মোবাইল ফোনে রংপুর মেট্রো’র কোতয়ালী থানা পুলিশ কর্তৃপক্ষকে অবগত করেন। তার অভিযোগ সত্বেও তার মায়ের লাশ হস্তান্তর বিষয়ে কোন অনুনয়-বিনয়ে সাড়া দেয়নি পুলিশ। উল্টো ৩ বছর পূর্বে সুমীর তালাকপ্রাপ্ত প্রাক্তন স্বামী এনায়েত হোসেন মোহনকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ সেরে নেয়ার অভিযোগ তুলেছেন নৃশংসভাবে খুন হওয়া অবসরপ্রাপ্ত চাকরিজীবী বৃদ্ধা মায়ের একমাত্র মেয়ে। মোহন পরিবারের কেউ না হয়েও থানা পুলিশকে খুন হওয়া বৃদ্ধাকে শাশুড়ী ও ভিকটিমের মেয়েকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে গত ১৯ মে দায়ের করা হত্যা মামলার এজাহারে বাদী হয়েছেন নিজেই। ঘটনাটি সম্পর্কে মোহনের নাম প্রত্যাহার করে পুলিশকে এজাহারকারি হওয়ার অনুরোধ করা হলেও কর্তৃপক্ষ তার কথায় সায় দেননি। নগরীর দক্ষিণ মুলাটোল ব্যাংক কলোনী এলাকার বাসিন্দা জনতা ব্যাংকের সাবেক ডিজিএম বেলায়েত হোসেনের ছেলে এনায়েত হোসেন মোহনের সাথে প্রেম-ভালোবাসার সুবাদে সুমীর বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে সংসারিক বনি-বনা হয়নি দম্পত্তির। মোহন মাদকাসক্ত অনৈতিক কর্মকাÐ, পরধন লোভী হওয়ার তার এসবের কর্মকাÐের প্রতিবাদ করায় পারিবারিক জীবনে সুমীকে প্রায়ই শারিরীক নির্যাতন ও মানুষিক নির্যাতন করতো। মোহনকে ৩ বছর আগে তালাক দেয় সুমী। এবং মায়ের একমাত্র সন্তান সুমী হওয়ার সুবাদে কর্মজীবী মায়ের কাছ হতে টাকার দাবি করে থাকেন। দাবিকৃত টাকা এনে দিতে রাজী না হওয়ায় অমানবিক নির্যাতন করতো। সে কারনে স্বামীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে সুমীর। তখন হতেই সুমী ও তার মা আরজুমান্দ বানু ওরফে মিনু’র জীবনের ক্ষতি করার সুযোগ খুঁজতে থাকে মোহন। রাজধানীতে চাকরির সুবাদে তার মায়ের অর্থ, সম্পদ আত্মসাত করতে ফন্দি আটেন মোহন। বিভিন্ন সময়-অসময়ে মোবাইল ফোনে হুমকি-ধমকি দেয়ার ঘটনাও ঘটে। এ ব্যাপারে ডিএমপি’র আদাবর থানার জিডি নং ১৮৬, তাং-০৫/১১/২০১৬ এবং রমনা থানার জিডি নং-১৮২, তাং-০৪/০৭/২০১৭ইং পৃথক দুটি সাধারন ডায়রী করেছেন তানিয়া মাহজাবীন সুমী। এরপরেও মোহন তার পিছু হটেনি বরং তার মায়ের বাড়ি পাশাপাশি হওয়ার সুবাদে স্থানীয় প্রভাব খাটিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যাকান্ডের ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে চালিয়ে দিতে পুলিশকে ভুল তথ্য দেয়া হয়েছে। দায়ের করা মামলার এজাহারে মোহন উল্লেখ করেছেন জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে আরজুমান্দ বানুকে হত্যা করা হয়েছে, মোহন একজন প্রত্যক্ষদর্শীর মতই ঘটনার বর্ণনা দেয়। তার দেয়া বর্ণনার সাথে দায়ের করা মামলার আসামী হিসেবে গ্রেফতার হওয়ার আরমান আলী পুলিশকে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির মিল রয়েছে। এতে করে পরিস্কার হয়েছে যে, হত্যাকান্ডে নিজের জড়িত থাকার বিষয়টিকে ঢাকতে স্থানীয় প্রভাবশালী মহলকে ব্যবহার করে মোহন নিজেই মামলার বাদি হয়েছেন।

এদিকে, গত ২৮ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই খাইরুল ইসলামসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে সবকিছু তছনছ দেখতে পায় সংশ্লিষ্টরা। বাড়ির সামন-পেছনের দরজা ভাঙার কোন আলামত দেখা যায়নি। এছাড়াও মায়ের রেখে যাওয়া জমির দলিল সংক্রান্ত কাগজপত্রাদিসহ ৮/৯ভরির বেশি স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া যায়নি। বর্তমানে বাড়িটিতে কেউ না থাকায় পরিকল্পিতভাবে চুরি সংঘটিত হওয়ারও ঘটনা ঘটেছে যঙার সাথে বখাটে ও মাদকসেবী মোহনের সম্পৃক্তা রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সুমী। বৃদ্ধা মা খুনসহ পুলিশের ভুমিকা এবং মোহনের কর্মকান্ডকে ঘিরে আরপিএমপি’র কোতয়ালী থানায়ও গত ২৮ মে সুমী এজাহার দায়ের করলে তা থানা কর্তৃপক্ষ জিডি হিসেবে গ্রহণ করেছেন। যার জিডি নং- ৯৭১ এবং ১১জুন দায়ের করা জিডি নং-৪৭৩। শেষ পর্যন্ত মায়ের হত্যাকান্ডে প্রকৃত আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, বিয়ের তালাক সংক্রান্ত তথ্য গোপন, পুলিশকে মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করার অভিযোগে মোহন ছাড়াও তাজহাট আনছারীর মোড় এলাকার রমজান আলীর ছেলে আরমান আলী, মুলাটোল হকের গলি এলাকার খোকা’র স্ত্রী আছিয়া বেগমের বিরুদ্ধে গত ১২ আগষ্ট রংপুরের বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোতয়ালী আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার পিআর নং ৬০/২০২০। তানিয়া মাহাজাবিন সুমী’র দায়ের করা অভিযোগ আদালত আমলে নেয়। আদালতের বিচারক কোতয়ালী থানায় দায়ের করা মামলা তদন্ত এবং আদালতে নালিশকৃত অভিযোগ একই সাথে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিকে সৃষ্ট ঘটনার সময় থানা পুলিশের দায়িত্বে থাকা শীর্ষ কর্মকর্তাই বা কিভাবে মোহনের এজাহারখানা মামলা হিসেবে অর্ন্তভুক্ত করলো? এ নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠছে সংশ্লিষ্ট মহলে। বিষয়টি সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত অপরাধীকে বাঁচানোর অপকৌশল করা হয়েছে এমন দাবি করে তানিয়া মাহাজাবিন সুমী বলেন, মায়ের হত্যা একটি পরিকল্পিত ঘটনা। মোহন ও তার সহযোগীরা নিজেদের বাঁচাতে সাজানো ঘটনার নায়ক মোহন সংবাদ সম্মেলন করে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করার চেষ্টায় লিপ্ত হয়েছেন। অবিলম্বে মামলার চার্জশীটে মোহনের নাম অর্ন্তভুক্ত করাসহ তাকে গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে আরপিএমপি কোতয়ালী থানার (উপ-পরিদর্শক) এসআই খায়রুল ইসলাম বলেন, আমি প্রথমে দায়িত্বে ছিলাম। এখন ওসি তদন্ত স্যার নিজেই তদন্ত ভার নিয়েছেন। এর বেশি কিছু বলার নেই আমার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: মোঃ জহিরুল ইসলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib