বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ১২:৩৪ অপরাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
দিনাজপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক প্রধান শিক্ষকের মৃত্যু দিনাজপুরে বাসের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত ১ বিরামপুরে এলজিইডি কর্মকর্তার দূর্নীতিতে উন্নয়ন অগ্রযাত্রা হুমকির মুখে দিনাজপুরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮শ ছাড়িয়ে সাতক্ষীরার নগরঘাটায় পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে ছাগল ও স্বর্ণের দুল ছিনতাই মাধবপুর হত দ্ররিদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর চাল বিতরণ কক্সবাজারে সেনাবাহিনীর ফ্রী মেডিক্যাল ক্যাম্পেইন ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় মুজিব শতবার্ষিকী উপলক্ষে গাছের চারা রোপন ঝালকাঠির রাজাপুরে হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এর মাকে অশ্লীল ভাষায় গালি-গালাজ করায় উত্তেজিত জনতা এক যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। শেরপুরে মানুষিক ভারসাম্যহীন নারীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন জেলা প্রশাসন

বেনাপোল বন্দর দিয়ে তিন মাস ধরে বন্ধ রপ্তানি বাণিজ্য ঘাটতি দুই হাজার কোটি টাকা

আহম্মদ আলী শাহিন, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ২৯ Time View

দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে ভারতের সঙ্গে আড়াই মাস ধরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকার পর গত ৭ জুন এ পথে ভারতীয় পণ্যের আমদানি বাণিজ্য শুরু হয়েছে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের নিরাপত্তা জনিত কারণ দেখিয়ে প্রায় তিন মাস ভারতীয়রা বাংলাদেশের সঙ্গে রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ রেখেছে। রপ্তানি বন্ধ থাকায় প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে। স্থানীয়ভাবে দফায় দফায় বৈঠক করা হলেও সচল হয়নি বাণিজ্য। বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয়ে আলোচনা চলছে। অচিরেই রপ্তানি বাণিজ্য চালু হবে। স্বাভাবিক সময়ে বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১৫০ থেকে ২০০ ট্রাক পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়।

সংশিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্যের বড় বাজার প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম ভারত। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় স্থল গথের রপ্তানী বানিজ্যের ৭০ শতাংশ হয়ে থাকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতিবছর এ বন্দর দিয়ে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা মূল্যের ৯ হাজার মেট্রিক টন পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞায় ২২ মার্চ থেকে স্থলপথে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুই পাশে বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় পণ্য নিয়ে আটকা পড়ে কয়েক হাজার ট্রাক। ভারতে লকডাউন শিথিলে দফায় দফায় বৈঠকের পর করোনা সংক্রমণ রোধে নিরাপত্তাব্যবস্থার মধ্য দিয়ে গত ৭ জুন ভারতীয় পণ্যের আমদানি বাণিজ্য শুরু হলেও বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানি বাণিজ্য এখনো বন্ধ রয়েছে। রপ্তানি চালুর বিষয়ে ব্যবসায়ী মহল স্থানীয়ভাবে কয়েক দফা চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে ভারতীয়রা এই মুহৃর্তে রপ্তানি পণ্য নিতে চাইছে না। ভারতের সঙ্গে তিন মাস ধরে রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে । ফলে বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে দুই হাজার কোটি টাকা। দফায় দফায় বৈঠক করা হলেও সচল হয়নি বাণিজ্য। এতে উৎপাদিত পণ্য নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্ম হারিয়ে বাড়ছে বেকারত্ব।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান বলেন স্থানীয়ভাবে রপ্তানি বাণিজ্য সচলের বিষয়ে কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। তারা বিভিন্ন সময়ে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছে। তবে কবে কখন রপ্তানি পণ্য নিয়ে ট্রাক ভারতীয় বন্দরে প্রবেশ করবে তার কোনো নির্দিষ্ট তারিখ নেই। বেনাপোল আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক বলেন তিন মাস এ পথে রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বৈঠকে চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু সফলতা আসছে না। যেহেতু আমদানি বাণিজ্য শুরু হয়েছে, তাই উভয় দেশের রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে আলোচনা না করলে রপ্তানি বাণিজ্য চালু করা সম্ভব হবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: মোঃ জহিরুল ইসলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib