শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা আদালতের সামনে মামলার বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি! জিনিয়া আক্তার সুইটি দিনাজপুর পৌরসভার ১ ঘন্টার প্রতিকী মেয়রের দায়িত্ব পালন করলেন বাগেরহাটে তরুনী ধর্ষন মামলাঃ ইউপি সদস্যসহ ৫ জনের দুই দিনের রিমান্ড জবিতে ‘বাংলাদেশের উপন্যাসে দেশভাগ ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা’ শিরোনামে পিএইচ.ডি সেমিনার অনুষ্ঠিত ত্রিশালে মায়ের হাতে শিশু খুন ফ্রান্সে মহানবীর ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে ঝালকাঠিতে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ নীলফামারী সদর ৫ নং টুপামারীর ইউনিয়ন পরিষদে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ। তারাগঞ্জে গরুবাহী নসিমনের নিচে চাপা পড়ে নিহত একজন আউচপাড়া ইউনিয়নের হাড়িপাড়া বিল,ব্যক্তি মালিকানা জমি লিজের মাধ্যমে এলাকাবাসীর মাছ চাষ জবির পরিবহন পুলে নতুন দুইটি এসি মাইক্রোবাস

‘বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করেছি কেউ এগিয়ে আসেনি’ ট্রলার ডুবে যাওয়ায় মৃত্যুর কুপ থেকে ফিরে আসা জেলে মাহমুদের বর্ণণা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৫ আগস্ট, ২০১৯
  • ৮২ Time View

জেলা প্রতিনিধি, বরগুনা ।।

‘সাগরে ঢেউয়ে ট্রলার ডুবে যাওয়ার পর কয়েক ঘণ্টা পানিতে ভাসতে ভাসতে বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার করেছি, কেউ এগিয়ে আসেনি। প্রায় ৭ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পর একটি ট্রলারের জেলেদের মায়ায় বাঁচার সাধ্য হয়েছে। নইলে আমিও পানিতে তলিয়ে যেতাম হয়তো মরদেহও ফিরে পেতনা কেউ।’

গভীর সমুদ্রে তুফানের কবলে পড়ে একটি মাছ ধরার ট্রলার ডুবে যাওয়ায় মৃত্যুর কুপ থেকে ফিরে আসা জেলে মাহমুদ রোববার (৪ আগস্ট) দিনগত রাত ১২টার দিকে এভাবে মৃত্যুর বর্ণনা দিচ্ছিলেন।

ফিরে আসা জেলে মাহমুদ নোয়াখালী জেলার মো. ওমর আলীর ছেলে। বাকি জেলেদের বাড়িও নোয়াখালী জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

মৃত্যুর কুপ থেকে ফিরে আসা জেলে মাহমুদ বলেন, রাত ৩টার দিকে ট্রলারটি নোঙর করে।১৭ জেলের মধ্যে আমিসহ ৫ জেলে ব্রিজের উপরে ছিল। বাকি ১২ জেলে ট্রলারের ব্রিজের নিচে ঘুমানো ছিল। হঠাৎ তুফানের কবলে পড়ে ট্রলারটি উল্টে যায়। কিছুক্ষণের মধ্যেই আমিসহ ৪জন জেলেকে ভাসতে দেখি। কিন্তু বাকিদের দেখতে পাইনি। প্রায় ৭ ঘণ্টা গভীর সমুদ্রে ভাসতে থাকি। এর মধ্যে অনেক ট্রলার তার কাছ দিয়ে গেলেও হাত ইশারা দিয়ে বাঁচার আকুতি করেছি। কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে এফবি আরিফ নামে একটি ট্রলারের জেলেরা আমাকে উদ্ধার করে।

ভাসতে দেখা ৪ জেলের জীবন নিয়ে শঙ্কা না থাকলেও ট্রলারের ব্রিজের মধ্যে ঘুমন্ত অবস্থায় থাকা ১২ জেলের জীবন অনিশ্চিত বলে যোগ করেন তিনি।

বৈরী আবহাওয়ায় বঙ্গোপসাগরে ঢেউয়ের তোড়ে ১৭ জেলে নিয়ে এফবি জাকিয়া ট্রলার ডুবে যায়। ৭ ঘণ্টা পর মাহমুদ নামে এক জেলে উদ্ধার হলেও ট্রলারসহ ১৬ জেলে দু’দিনেও সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এর আগে শনিবার (৩ আগস্ট) দিনগত রাত ৩টার দিকে তুফানের কবলে পড়ে বঙ্গোপসাগরের পুর্ব লাল বয়া এলাকায় ঘুমন্ত অবস্থায় বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার তাফালবাড়িয়া গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মালিকানাধীন এফবি জাকিয়া নামে একটি মাছধরা ট্রলারসহ ১৭ জেলে ডুবে যায়। ডুবে যাওয়ার ৭ ঘণ্টা পর ভাসমান অবস্থায় এফবি আরিফ নামে একটি ট্রলারের জেলেরা মাহমুদ নামে একজন জেলেকে উদ্ধার করে।

এদিকে ডুবে যাওয়া ট্রলার ও জেলেদের উদ্ধারের জন্য বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির পক্ষ থেকে এফবি মনোয়ারা ও এফবি নীল সাগর নামে দুইটি ট্রলার সাগরে পাঠানো হয়েছে।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, আমরা রোববার (৪ আগস্ট) দুপুরে দুইটি ট্রলার সাগরে পাঠানো হয়েছে। ট্রলার দুইটি মোবাইল নেটওয়ার্কের বাইরে থাকায় এখন পর্যন্ত কোনো খবর আসেনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: সময় সংযোগ টুয়েন্টিফোর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib