শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৫১ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায়য় দাফন সম্পন্ন তালতলীতে খাস জমি ও প্রাকৃতিক সম্পদে ভুমিহীন নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত উজিরপুরের হারতায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় চলচ্চিত্র তারকারা ত্রিশা‌লে নির্বাচন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ আমতলীতে স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ হওয়া পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর ৩ মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না শিক্ষক- কর্মচারীরা ১০ মাস পরে উপজেলা আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মাসিক সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁয় এনজিও পরিচালনার নামে দেড় কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মানববন্ধন বাগেরহাটের মোল্লারহাটে ডিকেকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকর বিরুদ্ধে অর্থ আদায়ের অভিযোগ বাগেরহাটে এবার জাল দলিল,ষ্টাম্প, নকল সীলসহ প্রতারক জাফর আটক
সিলেট বিভাগের সকল জেলায় জেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহীগন যোগাযোগ করুন somoysongjog24@gmail.com

কালের গর্ভে হারিয়েই যাচ্ছে মেয়েদের প্রিয় ‘কুতকুত’ খেলা

শাকিল আহমেদ, জামালপুর প্রতিনিধি
  • Update Time : সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১
  • ৭১ Time View

জামালপুর জেলা থেকে কালের গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার মেয়েদের এক সময়ের জনপ্রিয় খেলা ‘কুতকুত’। দিনের পর দিন গ্রামাঞ্চল ঘুরলেও এখন আর সচরাচর চোখে পড়ে না মেয়েদের সেকালের সেই গ্রামীণ খেলা ‘কুতকুত’।

গ্রামে মাত্র এক যুগ আগে কুতকুত খেলাটি ছিল ব্যাপক পরিচিত, কিন্তু নতুন প্রজন্মের কাছে খেলাটি এখন যেন সম্পূর্ণ অপরিচিত। অথচ গ্রামের প্রতিটি পাড়া মহলায় মেয়েরা এক সময় কুতকুত খেলায় প্রচুর পারদর্শী ছিল। উঠানে শস্য শুকাতে দেয়ার ফাঁকে কিংবা বিকালের নরম আলোয় গৃহের আঙিনায় কৈশোর পেরোনো মেয়েরা কুতকুত খেলায় মেতে উঠত। বর্ষার পরের নরম মাটিতে মাটির ভাঙা তৈজসপত্রের অংশ দিয়ে দাগ কেটে কুতকুতের জন্য ঘর বানিয়ে খেলা শুরু করে দিত।

জানা যায়, কুতকুত খেলার শুরুতে আয়তক্ষেত্রাকার মোট ৭/৮টি ঘর আঁকা হয় এবং এই ঘরগুলোর শেষ মাথায় অর্ধচন্দ্রাকৃতির আর একটি ঘর বানানো হয়। এরপর পাতলা একটি চাড় (অর্থাৎ মাটির তৈরী প্লেট বা পাতিলার ভাঙা টুকরা) প্রথম ঘরে ফেলে এক পা শূন্যে রেখে এবং দম দিতে দিতে গুটি (চাড়) কে সবগুলো ঘর অতিক্রম করে অর্ধচন্দ্রাকৃতির ঘরে এনে পা নামিয়ে দম ফেলতে হয়। তারপর এই ঘর থেকে ঘুঁটিকে পা দিয়ে আঘাত করে সব ঘর অতিক্রম করতে হয়। এ সময় ঘুঁটিটি সব ঘর অতিক্রম না করলে অর্ধচন্দ্রাকৃতির ঘর থেকে বের হয়ে শূন্যে পা তুলে দম নিতে নিতে তাকে আবার আগের নিয়মে ঘর থেকে বের করে আনতে হয়। খেলোয়াড়রা কপালে ঘুঁটি রেখে উপর দিকে তাকিয়ে ৮টা ঘরের দাগে পা না ফেলে অর্ধচন্দ্রাকৃতির ঘরে যেয়ে আবার প্রথম ঘরে ফেরত আসতে পারলে সে ঘর কেনার যোগ্যতা অর্জন করে। কুতকুত খেলায় যে ঘর কেনা হবে সেই ঘরে খেলার অপর সাথি পা বা ঘুঁটি ফেলতে পারবে না। ঘর কেনার প্রক্রিয়াকালীন সময়ে খেলোয়াড়দের দাঁত দেখা গেলে ঐ খেলোয়াড় খেলা অবস্থায় মারা যায়। ক্রমান্বয়ে ঘর কিনে শেষ ঘরটি দখল করার মাধ্যমে খেলার নিষ্পত্তি হয়।

এ খেলা সম্পর্কে সদর উপজেলার কম্পপুর গ্রামের গৃহিনী রাশেদা বেগম বলেন, প্রথমেই একের ঘরে চাড় ফেলতে হবে। তারপর ধাক্কাইয়া ধাক্কাইয়া সেই চাড় এক এর ঘর থেকে দুইয়ে, দুই থেকে তিনে, তিন থেকে চারে নিয়ে জোরে ধাক্কা দিয়ে সাতের ঘরে নিতে হয়। এ সময় ৫ ও ৬ ঘরে দুই পা দুই দিকে ফেলে লাফ দিয়ে ৭ এর ঘরে গিয়ে এক সাথে দুই পা ফেলতে হয়। তবে এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হয়, কুতকুত খেলার ঘরটার জন্য যে দাগ কাটা রয়েছে সে দাগে যেন কখনই পা না পড়ে। এছাড়া খেলার চাড়টা যেন দাগে না পরে এবং দাগের বাইরে না যায়। একই সঙ্গে দমের (নিঃশ্বাস) ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হয়, নিঃশ্বাস না ছেড়ে “ কুত কুত কুত কুত কুত কুত কুত – কুথাহ” বলে প্রতিটি ঘরে এক পা এক পা করে রেখে যেতে হবে। এভাবে একে একে ছয়টি ঘর খেলতে হয়। এভাবে একে একে সব ঘর কিনে ফেলার পর সর্বশেষ ৭ নাম্বার ঘর কেনা শেষে খেলাটি শেষ হয়। তিনি তাদের ছোট বেলার সেই কুতকুত খেলার বর্ণনা দিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, আমাদের সময়ের খেলাগুলো ছিল শরীরের জন্য অনেক উপকারী। নব্বইর দশকে কুতকুত, গোল্লাছুট ও মেন্দি খেলা ছিল গ্রামের মেয়েদের জনপ্রিয় খেলা, কিন্তু তা আজ আর নেই। এ সময় পাশে থাকা সপ্তম শ্রেণী পড়ুয়া মুনতাহা বলে, কুতকুত আবার কোন খেলা? এ থেকেই পরিষ্কার প্রতীয়মান হয় যে, গ্রাম থেকে কুতকুত খেলাটি হারিয়ে গেছে।

সচেতন মহল মনে করেন, দেশীয় সংস্কৃতি ও গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে হলে সবাইকে বিশেষ করে অভিভাবকদের নিজ নিজ সন্তানকে হারিয়ে যাওয়া খেলাধুলায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। না হলে এক সময় কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে গ্রাম বাংলার এসব খেলাধুলা।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: কাওসার হামিদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib