বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন
মুজিব বর্ষ
শিরোনাম :
কুয়াকাটার সৈকতে আবারও মৃত ডলফিন -মাটি চাপা দিলো পৌর পরিছন্ন কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঈদ উপহার পেয়ে বয়োবৃদ্ধ আমজেদ ঘরামী বলেন “শেখের মাইয়া শেখ হাসিনারে আল্লাহ যেন হারা জনম ক্ষমতায় রাহে” চুরির এক দিন পরে চুরি হওয়া গাড়ীসহ চোর গ্রেফতার ওয়াজেদ মিয়ার ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের ইফতার বিতরণ প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঈদ উপহার পেল আমতলী পৌরসভার ৪৬২১টি পরিবার তারাগঞ্জে উপজেলা প্রেসক্লাবের সভা ও ইফতার অনুষ্ঠিত বাগেরহাটে কর্মহীন পেশাজীবীরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার তরুণ নির্মাতা সায়াদ মামুর কাব্য নির্মিত ওভিসি ‘দাফন’ এবং ‘ইফতার’ দর্শক মহলে প্রশংসিত হচ্ছে রংপুরে ১১ দিন ধরে অবরুদ্ধ ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠি পরিবার মহাদেবপুরে বিএসডিও’র নির্বাহী পরিচালকের নির্দেশে মন্দির চত্বরে গরু জবাই: সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ
সিলেট বিভাগের সকল জেলায় জেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। আগ্রহীগন যোগাযোগ করুন somoysongjog24@gmail.com

করোনা আক্রান্ত সংকটাপন্ন রোগীর জীবন বাঁচবে বাগেরহাটের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল দশটি ভেন্টিলেটর বরাদ্দ, দ্রুত চালুর দাবি

বাগেরহাট প্রতিনিধি.
  • Update Time : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৯ Time View

বাগেরহাটের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল দশটি ভেন্টিলেটর (আইসিইউ বেড) বরাদ্দ পেয়েছে। ফলে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত সংকটাপন্ন মুমুর্হু রোগীদের জন্য যে সংকট ছিল তা অনেকাংশে কেটে যাবে বলে মনে করছে স্বাস্থ্যবিভাগ। ভেন্টিলেটর পাওয়ার খবরে খুশি হয়েছেন এখান সচেতনমহল। স্বাস্থ্যবিভাগকে দ্রুত এই ভেন্টিলেটরগুলো চালুর উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানিয়েছে সচেতনমহল।
বাগেরহাট ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক ও প্রবীণ সাংবাদিক আহাদ উদ্দিন হায়দার এই প্রতিবেদককে বলেন, গত বছরের মার্চ মাসে যখন মরণব্যাধি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে শুরু করে তখন থেকে সারাদেশের মত বাগেরহাটবাসীও উদ্বিগ্ন ছিল। তখন বাগেরহাটের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার অন্তত সহস্রাধিক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হন। মারা যান অন্তত ২৭ জন। মারা যাওয়াদের অধিকাংশ মানুষের জন্য প্রয়োজন ছিল আইসিইউ বেড। কিন্তু বাগেরহাটের হাসপাতালে কোন আইসিইউ ছিল না। যার কারনে অকালে এসব মানুষের মৃত্যু হয়। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুঝুঁকি বয়স্ক ও শিশুদের। এই সব সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য আইসিইউ বেড থাকা খুবই জরুরি। করোনা ভঅইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে সচেতনমহল বাগেরহাট সদর হাসপাতালে আইসিইউ বেড চালুর দাবি তোলেন। সেই দাবির প্রেক্ষিতে বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময় সাধারণ মানুষের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে আগ্রহী হন। তিনি সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আইসিইউ বেড চেয়ে আবেদন করেন। তার নিরলস প্রচেষ্টায় আমরা দশটি ভেন্টিলেটর পেয়েছি। আমরা বাগেরহাটবাসী তার জন্য চিরকৃতজ্ঞ। এই উদ্যোগের ফলে বাগেরহাটে ভবিষ্যতে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত সংকটাপন্ন রোগীরা প্রাণে বেঁচে যাবেন। মহামারির এই সময়ে পাওয়া এই ভেন্টিলেটরগুলো জরুরী ভিত্তিতে যেন হাসপাতালে চালু করা হয় তার ব্যবস্থা করতে স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।
বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন এই প্রতিবেদককে বলেন, গত বছরের মার্চ মাসে যখন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকে তখন থেকে বাগেরহাটের চিকিৎসকরা সাধারণ মানুষের চিকিৎসাসেবা দিতে অনীহা দেখায়। সেজন্য আমাদের বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়ের ব্যক্তিগত উদ্যোগে হাসপাতালের সামনে ডক্টর সেফটি চেম্বার করে দেন। সংক্রমণ ঝুঁকির মধ্যে হাসপাতালের ভিড় কমাতে তিনি ডাক্তারের কাছে রোগী নয়, রোগীর কাছে ডাক্তার এই সেবা চালু করেন। গর্ভবতি মাদের জন্য বাড়িবাড়ি পুষ্টিকর খাবার পৌছে দেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর তিনি অনেক ভাল ভাল উদ্যোগ নিয়েছেন তা বাগেরহাটবাসী জানে। বাগেরহাটে করোনা আক্রান্ত হয়ে মানুষের মৃত্যুর খবরে তিনি উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠেন। সংকটাপন্ন রোগীদের কিভাবে আরও ভাল চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা যায় সেজন্য তিনি স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে আইসিইউবেড স্থাপনের উদ্যোগ নেন। তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে ভেন্টিলেটর চেয়ে আবেদন করলে সেই আবেদনে সরকার সাড়া দিয়েছে। এই ভেন্টিলেটর পেয়ে আমরা দারুণ খুশি হয়েছি। স্বাস্থ্য বিভাগ অল্প সময়ে এই আইসিইউবেড চালু করে সাধারণ মানুষের সেবা নিশ্চিত করতে সেই আহ্বান জানাচ্ছি।
বাগেরহাটের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবির এই প্রতিবেদককে বলেন, বাগেরহাটে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ৫০ শয্যার একটি ডেডিকেটেড হাসপাতাল প্রস্তুত রয়েছে। গত বছর থেকে এই হাসপাতালটি আমরা প্রস্তুত রেখেছি। গত বছরের শুরুতে এই হাসপাতালে অক্সিজেনের সংকট ছিল। তা আমরা কাটিয়ে উঠেছি। এখন হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেনের লাইন স্থাপন করা হয়েছে। চিকিৎসকরা যাতে ঝুঁকিমুক্ত হয়ে রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিতে পারে সেজন্য ডক্টর সেফটি চেম্বার রয়েছে। সব মিলিয়ে রোগীদের চিকিৎসার জন্য আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। হাসপাতালে সেবা নিতে আসা করোনা আক্রান্ত রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হয় তাহলে ওই রোগীর জন্য এই হাসপাতালে কোন আইসিইউ ইউনিট ছিলনা। তবে আশার কথা হল বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়ের প্রচেষ্টায় সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিভাগ বাগেরহাটের এই হাসপাতালের জন্য দশটি ভেনটিলেটর বরাদ্দ পেয়েছি। বাগেরহাটবাসীর জন্য এটি একটা বড় সুসংবাদ। ভেন্টিলেটর অর্থ্যাৎ আইসিইউ বেড সাধারণত মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে সরকার বরাদ্দ দিয়ে থাকে। সেখানে জেলা শহরের একটি হাসপাতালে দশটি ভেন্টিলেটর বরাদ্দ। যা অকল্পনীয়। বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়ের নিরলস প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে। এটি আমরা হাতে পেয়েছি। সবচেয়ে অবাক করা ব্যাপার হলো এই ভেন্টিলেটরগুলো বাগেরহাট সদর হাসপাতালের নামে বরাদ্দ না দিয়ে সরাসরি এমপি মহোদয়ের নামের উপর বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।
ভেন্টিলেটর ব্যবহার জন্য যে প্রস্তুতি আমাদের প্রয়োজন সেই কাজ আমরা ইতিমধ্যে শুরু করেছি। আইসিইউ কক্ষ, বেডসহ অন্যান্য কাজ দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করছি। এই আইসিইউ চালু করা গেলে এই জেলায় করোনা আক্রান্ত সংকটাপন্ন রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে পারবেন বলে আশা করছেন এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

নিউজটি শেয়ার করুন

posted by: সময় সংযোগ টুয়েন্টিফোর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © by somoy songjog 24 | Developed by Md. Rajib